ভূঞাপুরে নদী ভাঙ্গনের ক্ষতিপূরণের তালিকা তৈরিতে অনিয়ম তদন্ত কমিটি গঠন

মোঃ আব্দুর রহীম মিঞা, ভূঞাপুর ঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনার নদীর ভাঙ্গন এলাকায় বসতবাড়ী নদীর গর্ভে বিলিন হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে নতুন ঘর তৈরিতে ক্ষতি পূরণ দেয়ার জন্য দুস্থ্য অসহায় পরিবারের একটি তালিকা তৈরির নির্দেশ দেয় সরকার।

সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের পরিষদের চেযারম্যান মনির হোসেন ও অর্জুনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আইয়ুব মোল্লা, গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু, , নিকরাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন সরকার ক্ষতিগ্রস্থ্যদের তালিকা তৈরি করেন ২০১৯ সালে । যমুনার নদীতে বিলিন হওয়া উপজেলার গাবসারা, অর্জুনা,নিকরাইল, গোবিন্দাসী ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবাবের মাঝে বিতরণে জন্য ১ কোটি ৬৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। সে সময় ৩ শ্রেণিতে বিভক্ত করে প্রতিটি পরিবাবের জন্য ১০ হাজার ১১ হাজার ১২ হাজার টাকা করে বরাদ্দ রেখে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন ১ হাজার ৫ শত জনের তালিকা করে পাঠানো হয় প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআই) মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে । কিন্ত নানা কারণে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। এর পর ২০২১ সালে নতুন করে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হলে মনির হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু, আব্দুল মতিন সরকার এবং আইয়ুব মোল্লাসহ সকলেই পরাজিত হন। নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন গাবসারা ইউনিয়ন পরিষদে শাহআলম আকন্দ শাপলা ও অর্জুনা ইউনিয়ন পরিষদে মোঃ দিদারুল আলম খান মাহবুব, গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদে দুলাল চকদার, নিকরাইল ইউনিয়ন পরিষদে মোঃ মাসুদুল হক । নির্বাচিত হওয়ার ক্ষতিগ্রস্থ্যদের তালিকা তৈরির দায়িত্বভার এসে পড়ে তাদের উপর ২০২২ সালে । বর্তমানে নুতন কোন তালিকা না করে সেই ১ হাজার ৫ শত জন ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্য থেকে ৪ ইউনিয়নের ৩৩২ জনের তালিকা করে প্রতি পরিবারকে ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ হাজার টাকা করে দেয়ার নতুন নির্দেশনা দেওয়া হয়। ৩৩২ জনের তালিকা তৈরির কাজ শুরু করে ওয়ার্ডের মেম্বার ও চেয়ারম্যানেরা। তালিকা তৈরির শুরুতেই অভিযোগ উঠে অজুনা ও গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারমান-মেম্বাদের বিরুদ্ধে এলাকায় এলাকায় ১৫/২০ হাজার টাকা করে ঘুষ নিয়ে তালিকা তৈরির। নতুন করে তালিকা পণয়নের নিয়ম না থাকলেও অভিযোগ আসায় যমুনা নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ প্ররিবাবের ঘর নির্মানে উন্মুক্ত তালিকা তৈরির লক্ষে স্বচ্ছতার সহিত মুক্ত আলোচনার আয়োজন করে উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান দিদারুল আলম খান মাহবুব। কারো কাছে কোন প্রকার ঘুষ না দেয়ার আহবান জানান গাবসারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহআলম আকন্দ শাপলা । এরই মধ্যে গাবসারা ইউনিযন থেকে কোন লিখিত অভিযোগ না আসলেও অজুনা ইউনিয়নের বাসুদেবকোল এলাকার মোঃ আব্দুল কদ্দুস, মোঃ আসাদুল ইসলাম, মোঃ শাহজামাল, আক্তার হোসেন, মোছাঃ নাজমা আক্তার, মোঃ নজরুল ইসলাম, মোঃ নূরু, মোঃ সোবহান একই এলাকার ওয়ার্ড মেম্বার দিলশাদ ও মহিলা ওয়ার্ড মেম্বার মাসুমার বিরুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্থ্যরা লিখিত অভিযোগ দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে। তোলপার শুরু হয় উপজেলা জুড়ে । উপজেলা যুব উন্নযন কর্মকর্তা মোঃ সাইফুর রহমানকে প্রধান করে ১ সদস্য তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ ইসরাত জাহান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা মোছাঃ ইসরাত জাহান জাহান জানান যমুনায় বসতবাড়ী বিলীন হওয়া পরিবারের মাঝে তালিকা প্রণয়নে কিছু দুনীতির লিখিত অভিযোগ আসায় উপজেলা যুব উন্নযন কর্মকর্তা মোঃ সাইফুর রহমানকে প্রধান করে ১ সদস্য তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছি । দ্রæত সময়ের মধ্যে তদন্ত কাজ শেষ করে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন হাতে পাইলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভূঞাপুরে নদী ভাঙ্গনের ক্ষতিপূরণের তালিকা তৈরিতে অনিয়ম তদন্ত কমিটি গঠন

পরিচিতি Ibrahim Bhuiyan

এটাও চেক করতে পারেন

ভূঞাপুরে মাদরাসা শিক্ষক হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে মাদরাসা শিক্ষক হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করেছে মাদরাসা শিক্ষক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *