ভুঞাপুরে ভূট্রা চাষে লাভবান হচ্ছে চরাঞ্চলের কৃষক

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় টাঙ্গাইলের ভুঞাপুর উপজেলায় ভূট্রা চাষে লাভবান হচ্ছে যমুনার চরাঞ্চলের কৃষকরা । অন্যান্য ফসলের চেয়ে ভুট্রা আবাদে তুলনামূলক খরচ কম ও উৎপাদন বেশি। এছাড়া উৎপাদিত ভুট্রা বাজারে ভাল দরে বিক্রি করে লাভবান হওয়া যায় বলে কৃষকরা এজন্য ভুট্রা চাষ করছেন। তবে এবছর ভূট্রার ফলন ভালো হলেও বর্তমান বাজার দরে হতাশা প্রকাশ করেছেন এ অঞ্চলের কৃষকরা।

জানাযায়, ভুঞাপুর উপজেলার যমুনার বুকে জেগে উঠা ৪ টি ইউনিয়ন অর্জুনা, গাবসারা, গোবিন্দাসী ও নিকরাইল ইউনিয়নের চরাঞ্চলের ব্যাপক পরিমানে ভুট্রা আবাদ করেছেন। বন্যার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও ভুট্রার চাষের মাধ্যমে সেই ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন। বন্যার পানিতে পলি জমে জমি আরো উর্বর হয়েছে। তাই ভুট্টা চাষে স্বপ্ন বুনছেন কৃষকরা। এবছর আবহাওয়া ভাল থাকায় বাম্পার ফলনও হয়েছে। আশানুরূপ ফলন হলেও বর্তমান বাজারদর কম হওয়ার কারণে চিন্তায় আছেন ভূট্রা চাষিরা।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মৌসুমে চরাঞ্চলসহ উপজেলায় ৩ হাজার ১০ হেক্টর ভুট্রার আবাদ হয়েছে। এতে ২৭ হাজার ৬৪২ মেট্রিক টন ভুট্রা উৎপাদন হয়েছে।

উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের যমুনা চরাঞ্চলের ভুট্রা চাষি মহর আলী তালুকদার,আব্দুল মালেক সহ আরো কয়েকজন কৃষক বলেন, বন্যার কারণে আমাদের তৈরী করা বীজতলা, সবজি খেত ও ফসল সব নষ্ট হয়ে যায়। এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বালু চরের জমিতে ভুট্রার আবাদ করেছি। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর ফলন বেশি হয়েছে। তবে বর্তমান বাজার দর কম। স্থানীয় হাটে প্রতিমণ শুকনো ভুট্রা ৯০০-১০০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজার দর এমন থাকলে আমরা লাভ করতে পারবো না।কারন সার কিট নাশকের দাম বেশি। রেহাই গাবসারার কৃষক তোফাজ্জল হোসেন জানান আমি ৭ বিঘা জমিতে ভূট্ট্রা চাষ করেছি এবছর যেমন দেখছি তাতে বিঘাতে ৩২ মন ছাড়িয়ে যাবে আসা করছি।একই গ্রামের সায়েদ আলী জানান যেভাবে ভুট্ট্রা চাষ হয়েছে এতে করে আমাদের ভাগ্যের পরিবতন হবে কারন এত বেশি ভূট্ট্রার আবাদ এর আগে কখনো হয় নাই।রামপুর গ্রামের ভুট্রা চাষি চান্দু শেখ বলেন, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর পলি জমে জমি আরো উর্বর হয়। তাছাড়া এখানকার মাটি ভুট্রা চাষের উপযোগী হওয়ায় ফলন ভালো হয়েছে। এবছর আমি ১৫ বিঘা জমিতে ভুট্রার চাষ করেছি। বিঘা প্রতি ২৫-৩০ মণ করে ফলন পেয়েছি। সকল খরচ বাদ দিয়ে ৩ লাখ টাকা লাভের আশা থাকলেও বর্তমান বাজার দর কম থাকায় সেই আশা করতে পারছি না। গত বছর প্রতিমণ ভুট্রা ১২০০-১৪০০ টাকা দরে বিক্রি করতে পারলেও এবছর ৮শত থেকে ১ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ড. মো. হুমায়ুন কবির বলেন, চলতি বছর যমুনার চরাঞ্চলে ২ হাজার ১৫২ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। তবে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ৩ হাজার ১০ হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। কম খরচে চাষ করে বেশি উৎপাদন করা যায় বলে কৃষকরা এবছর ভূট্রা চাষে ঝুঁকছেন। আমরা কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের বিনামূল্যে উন্নত মানের বীজ ও সার বিতরন করেছি। এছাড়াও আমরা মাঠ পর্যায়ে যেয়ে কৃষকদের পরামর্শ ও সহযোগিতা করছি।

পরিচিতি Ibrahim Bhuiyan

এটাও চেক করতে পারেন

ভূঞাপুরে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা ও মতবিনিময়

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে নবনির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা ও মতবিনিময় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *